Thursday, January 30th, 2014

জাতীয় কমিটির সভা: সুন্দরবন ধ্বংসের ও জাতীয় স্বার্থবিরোধী রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং বঙ্গোপসাগরের গ্যাসব্লক ইজারা বাতিলের দাবি

তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সভায় বক্তারা, জনমত উপেক্ষা করে সুন্দরবন ধ্বংসের ও জাতীয় স্বার্থবিরোধী রামপাল তাপবিদ্যুৎ প্রকল্প অব্যাহত রাখায় ও জাতীয় স্বার্থবিরোধী পিএসসি’র অধীনে বঙ্গোপসাগরে কনোকো-ফিলিপসকে গ্যাসব্লক ইজারা দেওয়ায় তীব্র ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প ও কনোকো-ফিলিপসের সাথে ইজারা বন্ধের দাবী জানিয়েছেন।

সভায় তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরীকে সরকারের জ্বালানি উপদেষ্টা নিয়োগ দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলা হয়, জাতীয় সম্পদ নিয়ে জাতীয় স্বার্থবিরোধী অপতৎপরতার অন্যতম ভূমিকা পালনকারী ও দুর্নীতির অভিযোগ থাকা সত্বেও এই নিয়োগ দুর্নীতিবাজ ও বহুজাতিক কোম্পানির স্বার্থ রক্ষার কাজকেই অগ্রসর করবে।

সভায় দেশের গ্যাস বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে জাতীয় সংস্থার অধীনে স্থলভাগের ব্লকসমুহ থেকে যথাসম্ভব বর্ধিত হারে গ্যাস উত্তোলন, বন্ধ রাষ্ট্রীয় বিদ্যুৎ প্লান্টসমুহ মেরামত ও নবায়ন এবং রাষ্ট্রীয় খাতে বৃহৎ বিদ্যুৎপ্লান্ট নির্মাণ সহ জাতীয় কমিটির ৭ দফা দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়।

আজ সকালে গ্রীণ রোডের জাহানারা গার্ডেনে জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন- নুর মোহাম্মদ, প্রকৌশলী ম. ইনামুল হক, প্রকৌশলী কল্লোল  মোস্তফা, রুহিন হোসেন প্রিন্স, বজলুর রশিদ ফিরোজ, রাগিব আহসান মুন্না, জোনায়েদ সাকী, আজিজুর রহমান, নজরুল ইসলাম, মীর মোফাজ্জেল হোসেন মোস্তাক, ফখরুদ্দীন কবির আতিক, সুবল সরকার, মাসুদ খান, ডা. সামছুল আলম, মোশাহিদ আহমেদ, শহীদুল ইসলাম সবুজ, জাহাঙ্গির আলম ফজলু প্রমুখ।

সভায় জাতীয় সম্পদ নিয়ে সরকারের গণবিরোধী অপতৎপরতা রুখে দাঁড়াতে বৃহত্তর আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে সচেতন দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়।