Sunday, October 11th, 2009

বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি বরাবর চিঠি

১১ অক্টোবর ২০০৯

মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভুঁইয়া

সভাপতি

বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ।

প্রিয় মহোদয়,

আন্তরিক শুভেচ্ছা গ্রহণ করুন। গত ১০.১০.২০০৯ ইং তারিখে (স্মারক নং-আসপত্র নং-২০০৯/০৯) বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির পক্ষ থেকে আমাদের জাতীয় কমিটি বরাবর আগামী ১৫.১০.২০০৯ ইং তারিখে মতবিনিময় করার আহ্বান জানিয়ে আপনি যে আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছেন সেজন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমরা উক্ত তারিখের মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করতে বিশেষভাবে আগ্রহী। এই মতবিনিময় সভা কার্যকর ও ফলপ্রসূ করবার জন্য আমরা আপনার মাধ্যমে সংসদীয় কমিটির কাছে সুনির্দিষ্ট কয়েকটি প্রস্তাব রাখছি:

১. এই মতবিনিময় সভায় সুনির্দিষ্ট কী কী বিষয়ে আলোচনা হবে তা আপনি উল্লেখ করেননি। আলোচ্যসূচীবিহীন আলোচনা কোন প্রকার ইতিবাচক ফলাফল বয়ে আনবে না বিধায় আমাদের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্টভাবে কয়েকটি বিষয় আলোচ্যসূচীতে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব করছি। যা নিম্নরূপ:

i.   নমুনা উৎপাদন বণ্টন চুক্তি (মডেল পিএসসি ২০০৮) এবং সমুদ্রের তিনটি ব্লক নিয়ে বর্তমান চুক্তি প্রক্রিয়া;

ii.  পানি মাটি কৃষি মানুষ বিধ্বংসী ফুলবাড়ী কয়লা প্রকল্প বাতিল সংক্রান্ত ৬ দফা চুক্তির বাস্তবায়ন;

iii. গ্যাস সরবরাহ ও বিদ্যুৎ উৎপাদনের সংকট নিরসনে আশু করণীয়;

iv. জ্বালানী খাত সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণে স্বচ্ছতা আনয়ন ও এই খাতকে দুর্নীতিমুক্ত করা;

v.   বাপেক্স, পেট্রোবাংলাসহ জাতীয় সক্ষমতা বিকাশ সুনিশ্চিতকরণ।

২. আলোচনা অর্থবহ করার জন্য মডেল পিএসসি ২০০৮ অনুসারে সরকারের পক্ষ থেকে দুটি বিদেশী কোম্পানির সাথে জাতীয় স্বার্থবিরোধী চুক্তি সম্পাদন করার চলতি প্রক্রিয়া স্থগিত রাখা অত্যাবশ্যক। এ বিষয়ে জ্বালানী বিষয়ক সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে পেট্রোবাংলাকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব/নির্দেশ প্রদান।

৩. প্রস্তাবিত মতবিনিময় সভা উন্মুক্ত রাখা ও প্রচার মাধ্যমে এর প্রচারের সুযোগ রাখা। বিভ্রান্তি থেকে জনগণকে মুক্ত রাখার জন্য আলোচনা সরাসরি স¤প্রচারের ব্যবস্থা করা। এবং

৪. জনগণের স্বার্থে জাতীয় সম্পদ রক্ষা, উত্তোলন ও ব্যবহারের জন্য জাতীয় কমিটি যে আন্দোলন পরিচালনা করছে তার বিরুদ্ধে সরকারের বিভিন্ন মহল কর্তৃক অপপ্রচার বন্ধ করা।

উপরোক্ত বিষয়াবলীতে ইতিবাচক সাড়া পেলে প্রস্তাবিত আলোচনায় বসার জন্য আমরা সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আশা করি জাতীয় স্বার্থের কথা বিবেচনা করে খুব দ্রুত উপরোক্ত বিষয়াবলীতে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে আপনি আমাদের আহ্বানে সাড়া দেবেন।

আপনার উত্তরের অপেক্ষায়।

ধন্যবাদান্তে

প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ

আহ্বায়ক

তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি।