Wednesday, November 27th, 2019

৬ ডিসেম্বর জাতীয় কনভেনশন সফল করুন

আগামী ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় কনভেনশন সামনে রেখে আজ ২৭ নভেম্বর গ্রীণ রোডে জাতীয় কমিটির কার্যালয়ে কমিটির এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিটির আহবায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ্। সভায় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, নূর মোহাম্মদ, প্রকৌশলী কল্লোল মোস্তফা, মোশারফ হোসেন নান্নু, জোনায়েদ সাকি, জহিরুল ইসলাম, খান আসাদুজ্জামান মাসুম, নজরুল ইসলাম, নাসিরউদ্দীন আহমেদ নাসু, আকবর খান, আহসান হাবিব বুলবুল, মাসুদ খান প্রমুখ।

সভায় প্রকৌশলী শেখ মুহম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘সরকার একদিকে গ্যাস সংকটের কথা বলে কয়লা ও পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রতিষ্ঠা করে দেশকে ভয়াবহ বিপদের দিকে নিয়ে যাচ্ছে অন্যদিকে গ্যাস সম্পদের শতভাগ দেশে ব্যবহারের জন্য জাতীয় সক্ষমতা ব্যবহার না করে গ্যাস রপ্তানির জন্য ‘পিএসসি ২০১৯’ মডেল তৈরি করছে।’

সভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘দেশের রাজধানী ঢাকা এখন বিশ্বের সবচাইতে দুষিত নগরী। কোটি মানুষ এর ভোগান্তির শিকার। যে সরকারের নাকের ডগায় রাজধানী বিষাক্ত, নদী নর্দমায় পরিণত হচ্ছে সেই সরকার জেনে বুঝে সুন্দরবনের ওপর বিষ ঢেলে দিয়ে বলছে তার কোনো ক্ষতি হবে না।’

সভায় আরও বলা হয়, দেশ যখন জলবায়ু পরিবর্তনের বিপদের মুখে তখন সরকার উপকূল জুড়ে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে বাংলাদেশকে আরো বিপদগ্রস্ত করছে। চীন, ভারত ও জাপানের বিভিন্ন কোম্পানির বিনিয়োগে এসব প্রকল্প করা হলেও এই সবগুলো দেশই নিজ নিজ দেশে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে সরে আসছে। রূপপুরে পারমারবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে বাংলাদেশকে আরো বিপদে নিক্ষেপ করা হচ্ছে। এসবের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী আন্দোলন জোরদার করা দরকার।

রামপালসহ সুন্দরবন বিনাশী ও দেশবিনাশী সকল প্রকল্প বাতিল, গ্যাস রপ্তানির অপতৎপরতা বন্ধ এবং জাতীয় কমিটির প্রস্তাবিত খসড়া মহাপরিকল্পনার মাধ্যমে সুলভ পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার দাবি নিয়ে জাতীয় কনভেনশন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আগামি ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে। এই কনভেনশনে এসব দাবিতে আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। সভায় এই কনভেনশন সফল করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়।