Friday, October 18th, 2019

লন্ডনে বাংলাদেশ হাই কমিশনের সামনে সুন্দরবন রক্ষা ও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ

সুন্দরবনের অদূরে ভারত-বাংলাদেশ যৌথ প্রকল্প কয়লাভিত্তিক রামপাল বিদুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে ১৭ অক্টোবর লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের সামনে ব্যাপক পুলিশের উপস্থিতিতে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশকারীরা রামপাল প্রকল্প বাতিলের দাবি করে বলেন যে, এই প্রকল্প থেকে যে বিপুল পরিমাণ কার্বন ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য নির্গমণ হবে, তা সুন্দরবন ধ্বংস করবে। সমাবেশ থেকে আরো বলা হয় যে, বাংলাদেশ সরকার গত জুলাই মাসে ইউনেস্কোর বাকু সম্মেলনের শর্ত অনুযায়ী কোন প্রকার পরিবেশগত সমীক্ষা ছাড়াই প্রকল্প নির্মাণ বন্ধ রাখার পরিবর্তে রামপাল বিদ্যুতকেন্দ্র নির্মাণ করে চলেছে। এই সাথে সরকার সুন্দরবনের পাশেই আরো ১৪৫টি কারখানা স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছে। সরকার কারোরই মতামতের তোয়ক্কা না করে ভারতের স্বার্থকে প্রধান্য দিয়ে সুন্দরবন ধ্বংস করার দিকে এগুচ্ছে। প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে অবিলম্বে এহেন আত্মবিনাশী রামপাল প্রকল্প এখনই বন্ধ ঘোষণার দাবি করা হয়। সমাবেশকারীরা সরকারকে কয়লা নির্ভর নোংরা জ্বালানী থেকে সরে এসে নবায়নযোগ্য জ্বালানী নীতি গ্রহণের আহবান জানান।

সমাবেশের কয়েকদিন আগেই মেইল বার্তায় হাই কমিশনারকে স্মারকলিপি গ্রহণের অনুরোধ করা হলেও, হাই কমিশনার তা গ্রহণ না করেই ব্যাপক পুলিশের সমাবেশ ঘটান। সমাবেশকারীরা হাই কমিশনারের এই ধরনের আচরণের নিন্দা জানিয়ে বলেন যে, শান্তিপূর্ণ সমাবেশর বিরুদ্ধে এহেন পুলিশী সমাবেশ ও স্মরকলিপি গ্রহণ না করা নিন্দনীয় এবং নাগরিকদের মতামত শুনতে না চাওয়ারই নামান্তর। সমাবেশে ড.মুখলিছুর রহমান, ড. আখতার সোবহান মাসরুর, মোস্তফা ফারুক, নিসার আহমেদ, ড. রুমানা হাশেম, মিজানুর রহমান বাবলু, জাহানারা রহমান ও ড. আয়েশা সিদ্দিকা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। তেল গ্যাস রক্ষা জাতীয় কমিটি যুক্তরাজ্য শাখা, ফুলবাড়ী সলিডারিটি গ্রুপ, রিক্লেইম দা পাওয়ার, এক্সআর গ্লোবাল জাস্টিস রেবেলিয়ন, এনভায়রনমেন্টাল জাস্টিস ব্লক, এক্সআর ইয়ূথ, এক্সআর লিবারেশন প্রভৃতি সংগঠন সমাবেশে অংশ গ্রহণ করে।

বার্তা প্রেরক

আখতার সোবহান মাসরুর
সদস্য সচিব
তেল গ্যাস রক্ষা জাতীয় কমিটি , যুক্তরাজ্য শাখা