Wednesday, November 9th, 2016

২৬ নভেম্বর ঢাকা সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে জাতীয় কমিটি ঢাকা মহানগরের সমাবেশ ও পদযাত্রা

তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ‘সুন্দরবনবিনাশী সকল চুক্তি বাতিলের দাবিতে আগামী ২৬ নভেম্বর ‘চলো চলো ঢাকা চলো’ শ্লোগান ধারণ করে ঢাকা সমাবেশ সফল করার জন্য ঢাকা মহানগর তেল-গ্যাস জাতীয় কমিটির প্রধান সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর আলম ফজলুর সভাপতিত্বে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ ও প্রচার পদযাত্রায় জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, যুক্তিতে পরাজিত হয়ে সরকার শক্তি প্রয়োগ ও দমন-পীড়নের যে পথ বেছে নিয়েছে তাতে রামপাল প্রকল্প বিরোধী আন্দোলন থেকে দেশপ্রেমিক জনগণকে পিছু হঠানো যাবে না। মিথ্যা প্রচার ছড়িয়ে জনমত গঠন করা সম্ভব হবে না। যত বাঁধা প্রদান করা হোক না কেন সারাদেশে সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন বেগবান হবে। সুন্দরবনকে ঘিরে ভূমি ও বনগ্রাসীদের অপতৎপরতা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের সংখ্যালঘুদের উপাসনালয় ও ঘর-বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে আদিবাসীদের ওপর হামলা একই স্বার্থান্বেষীগোষ্ঠীর ঘটানো। এ সময় তিনি ২৪-২৬ নভেম্বর ঢাকায় সুন্দরবন রক্ষার মহাসমাবেশকে সফল করার জন্য জাতীয় কমিটি ঢাকা নগরের সমাবেশের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, তৈমুর আলম খান অপু, জুলফিকার আলী, খান আসাদুজ্জামান মাসুম, মনির উদ্দিন পাপ্পু, শহিদুল ইসলাম সবুজ, মীর মোফাজ্জল হোসেন মোশতাক, ফখরুদ্দীন কবির আতিক, মাইনুদ্দিন চৌধুরী লিটন সহ প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে জাহাঙ্গীর আলম ফজলু সরকারকে সুন্দরবন ধ্বংসের ভূমিকা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। মহাপ্রাণ সুন্দরবন বাংলাদেশকে বাঁচায়। তাই সুন্দরবন রক্ষায় আমাদের জাতীয় কর্তব্য। যুক্তির জোরে নৈতিক সাহসে ও সুন্দরবন রক্ষার দায়বোধ থেকে আন্দোলনের যে জোয়ার তৈরি হয়েছে সেটাকে মেনে নিয়ে অপপ্রচার বন্ধ করে অবিলম্বে রামপাল চুক্তি বাতিল করে সুন্দরবনকে বাঁচানোর জোর আহ্বান রাখেন।
সমাবেশ শেষে একটি প্রচার মিছিল জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শুরু হয়ে জিরো পয়েন্ট-গুলিস্তান-বায়তুল মোকাররম সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুরানা পল্টন মোড়ে এসে শেষ হয়।